ঢাকাবৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, সকাল ৯:২৭

ঋণের নামে সুদের কারবার, ফাঁদে ফেলে হয়রানিমূলক মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক
এপ্রিল ২৫, ২০২২ ২:২০ অপরাহ্ণ
পঠিত: 172 বার
Link Copied!

বরগুনায় সোনার বাংলা সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি সাইনবোর্ডের আড়ালে গড়ে উঠেছে সঙ্ঘবদ্ধ জাল-জালিয়াতির একটি চক্র। চলছে অবৈধ সুদের কারবার। দেয়া হচ্ছে সাধারণ মানুষকে হয়রানিমূলক মামলা।

যে কোনো ব্যাংকের চেকের পাতা ও ফাঁকা স্ট্যাম্পে গ্রাহকের স্বাক্ষর রেখেই দিচ্ছেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের লাখ লাখ টাকা লোন। বিনিময় নেয়া হচ্ছে তাদের কাছ থেকে সুদ আসলে কয়েকগুণ টাকা।

আসলেরও কয়েকগুণ বেশি সুদের টাকা পরিশোধ করতে গিয়ে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। হয়রানিমূলক মামলা ও সুদের বেড়াজাল থেকে বেরিয়ে আসতে না পেরে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বরগুনা সদর থানায় অভিযোগ করেছেন। প্রতিকার না পেয়ে ভুক্তভোগীরা বরগুনা পৌরসভার মেয়রের কাছে ওই সমিতি বন্ধের জন্য লিখিত অভিযোগ করেছেন।

বরগুনা পৌরশহরের একাধিক ভুক্তভোগী অভিযোগ করে জানান, সোনার বাংলা সমবায় সমিতির নামে জাল জালিয়াতির একটি সংঘবদ্ধ চক্র শহরের বিভিন্ন অলিগলিতে সক্রিয় ভাবে কাজ করছে। চক্রটি ঋণ দান কর্মসূচীর নামে দৈনিক কিস্তিতে টাকা দিয়ে পরবর্তীতে মাসিক চওড়া সুদ হিসাবে টাকা আদায় করে। এই টাকা বা ঋণের বিপরীতে ঋণ গ্রহীতার কাছ থেকে ব্লাংক স্বাক্ষরিত চেক ও তিনশত টাকা ননজুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্প ও রেফ জামানত হিসাবে রাখে।

ভুক্তভোগীদের একজন মরণ কর্মকার সবুজ। তিনি বলেন, ‘আমরা ঋণের টাকা সুদসহ ফেরত দিলেও চক্রটি আমাদের স্বাক্ষরিত ব্লাংক চেক, ষ্ট্যাম্প ও রেফ দিয়ে আইন আদালতে অচেনা লোকজনকে বাদী করে আমাদের বিরুদ্ধে নানা ধরনের হয়রানিমূলক মামলা করছে। এখন আমাদের আত্মহত্যা ছাড়া কোন উপায় নাই।’ একই কথা বলেন ভুক্তভোগী আবদুর রহমান।

আরেক ভুক্তভোগী নয়ন কৃষ্ণ কর্মকার বলেন, আমাদের নামের মিথ্যা মামলা থেকে অব্যহতি পেতে প্রশাসন ও পৌর মেয়রের কাছে অভিযোগ করেছি। আমাদের মরা ছাড়া আর কোন উপায় নেই। আমরা ঐ জাল জালিয়াতি চক্রটির হাত থেকে রেহাই চাই।

এবিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলেও সোনার বাংলা সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

বরগুনা পৌরসভার মেয়র অ্যাড. কামরুল আহসান মহারাজ জানান, এদের বিরুদ্ধে এর আগেও অভিযোগ পেয়েছি। তবে বর্তমান বিষয় সম্পর্কে আমি অবগত না। খোঁজ নিয়ে বিষয়টি দেখবো।

বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আহম্মেদ জানান, এবিষয়ে লিখিত অভিযোগ পাইনি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।