ঢাকাশনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, রাত ২:৩৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আ.লীগ নেতাকে নারীর জুতাপেটার ঘটনায় নারীসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা

রুদ্র রুহান
এপ্রিল ১৭, ২০২২ ১১:৩৮ অপরাহ্ণ
পঠিত: 93 বার
Link Copied!

বরগুনায় আপত্তিকর অবস্থায় একটি কক্ষে নারীর জুতাপেটার ভিডিও সামািজক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার ঘটনায় মামলা করেছেন এক আওয়মী লীগ নেতা। বরগুনা সদও উপজেলার নলটোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহ আলম জাকির বাদি হয়ে রবিবার বরগুনা মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে এক নারীসহ চারজনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন বরগুনা।

মামলা বিষয়টি নিশ্চিত করে জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতের কর্মকর্তা (পেশকার) নিশ্চিত করে বলেন, আদালত মামলাটি গ্রহন করেছে। মামলা নং ৪২৩/২০২২ (বরগুনা সদর)। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

বাদির আইনজীবী সাইমুল ইসলাম রাব্বি জানান, মামলায় মোঃ আতিকুর রহমান সগীর (পাইপ সগীর), লিপি আক্তার রিমা, জাকির ফকির, মোঃ জাহিদ নামের চারজনকে আসামী করা হয়েছে। সংঘবদ্ধ চক্র পরিকল্পিতভাবে জিম্মি করে চাঁদা আদায়ের অভিযোগে দন্ডবিধির ১৮৬০ এর ৩৪, ১০৯, ৩২৩,৩৮৫,৩৮৭ ও ৩৮৯ ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

মামলায় বাদি মোঃ শাহ আলম জাকির বরগুনা সদর উপজেলার নলটোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। এর পাশাপাশি তিনি বাবুগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক। মামলায় বাদির অভিযোগ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তিনি বিভিন্ন সময়ে এলাকার লোকজনকে সরকারি বেসরকারি নানা সহায়তা পেতে সহযোগীতা করে আসছি। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারী মাসে মুঠোফোনে কল করে আসামী লিপি আক্তার রিমা নিজেকে অসহায় দাবি করে আমার কাছে সহায়তা চায়। তিনি ওই নারীকে সহায়তার আশ্বাস দেন এবং মাঝে মাঝে ফোনে কথা হয়। গত ৭ এপ্রিল বিকেলে মামলার আসামী রিমা শাহআলমকে ফোন করে সাক্ষাতে কথা বলতে বরগুনা পৌরশহরের ধানসিঁড়ি সড়কের এক নিকটাত্মীয়ের বাসায় আসতে বলেন। ওইদিনই তারাবিহ নামাজ শেষ করে রাত সাড়ে নয়টার দিকে ধানসিঁড়ি সড়কের বাসায় গেলে সেখানে কয়েকজন অপরিচিত ব্যক্তি ঘরের দরজা বন্ধ করে শাহ আলম জাকিরকে মারধর এবং এক পর্যায়ে আসামী লিপি আক্তার রিমা জুতাপেটা করে এসব দৃশ্য মুঠোফোনে ধারণ করে। পরে ওই ব্যক্তিরা পাঁচলাখ টাকা চাঁদা দাবি করে এবং চাঁদার টাকা না দিলে মুঠোফোনে ধারণকৃত ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকী দেয়। পরে ছেলের মাধ্যমে আসামীদের ৬০ হাজার টাকা দিয়ে জিম্মিদশা থেকে মুক্তি পেয়ে বাড়িতে চলে যান। ঘটনার একদিন পর ৯ এপ্রিল আসামী লিপি আক্তার রিমা একটি অপরিচিত মোবাইল নম্বর থেকে কল করে বাকি টাকা চায়। দাবিকৃত চাঁদার টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানানোয় ধারণকৃত ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়।

শাহ আলম জাকির বলেন, থানায় মামলা না নেয়ায় আমি আদালতে মামলা করেছি। আশাকরি ন্যায় বিচার পাবো।

বাদির আইনজীবী সাইমুল ইসলাম রাব্বি বলেন, মামলার বাদি সমাজসেবক। তিনি সহায়তা করতে গিয়ে একটি সংঘবদ্ধ চক্রের প্রতারণার শিকার হয়েছেন। মোটা অঙ্কের চাঁদা আদায়ের উদ্দেশ্যে তাকে জিম্মি করে ভিডিও ব্লাকমেইলিং করা হয়েছে। এ ঘটনায় তিনি আদালতের কাছে বিচার প্রার্থনা করেছেন। আমি তাকে আইনগত সহায়তা করব।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।