ঢাকাশনিবার, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, সন্ধ্যা ৭:১০

পৈত্রিক ভিটা ও জমি উদ্ধারে এক পরিবারের অনশন

আমতলী প্রতিনিধি
আগস্ট ৩০, ২০২২ ৮:৪৮ অপরাহ্ণ
পঠিত: 54 বার
Link Copied!

বরগুনার আমতলীতে পৈত্রিক ভিটা ও জমি উদ্ধারে অনশনে বসেছে এক পরিবার। মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) সকালে আমতলী প্রেসক্লাবের সামনে তারা এ অনশনে বসেন।

অনশনে বসা পরিবার জানায়, উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের উত্তর তক্তাবুনিয়া গ্রামের আলী হোসেন বিশ্বাস ২০০২ সালে ৬০ শতাংশ জমি রেখে মারা যান। তার মৃত্যুতে স্ত্রী মাহিনুর বেগম ও তার ছেলে আব্দুল মালেক বিশ্বাস ওই সম্পত্তির মালিক হন।

কিন্তু আব্দুল মালেক বিশ্বাস দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রামে বসবাস করার সুযোগে হলদিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম মৃধা জাল দলিল করে জোরপূর্বক তার পৈত্রিক ভিটা ও জমি দখল করেন এবং ২০১৯ সালে প্রধানমন্ত্রীর নামে কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছেন বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী মালেক।

দখলকৃত পৈত্রিক ভিটামাটি ফিরে পেতে প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করে মঙ্গলবার সকালে আব্দুল মালেক বিশ্বাস ও তার মা মাহিনুর বেগম, স্ত্রী কল্পনা বেগম ও এক বছরের শিশু সন্তান ফাহিমাকে নিয়ে আমতলী প্রেসক্লাবের সামনে অনশনে বসেন তারা। তবে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিলে আপাতত অনশন ভেঙ্গেছে পরিবারটি।

ভুক্তভোগী আব্দুল মালেক বিশ্বাস বলেন, মোর সব জমি ভুয়া দলিল হইর‍্যা লইয়্যা গ্যাছে চেয়ারম্যান শহীদুল মৃধা। ওই জমিতে মোর বাপ দাদার ভিটা ছিল। অ্যাহন মোর কিচ্ছু নাই। গুরাগারা লইয়্যা রাস্তায় থাহি। মোগো জমিতে চেয়ারম্যান প্রধানমন্ত্রীর নামে কলেজ হরছে। মুই প্রধানমন্ত্রীর কাছে বাদ দাদার ভিটামাটি ফিরা চাই।

আব্দুল মালেক বিশ্বাসের বৃদ্ধা মা মাহিনুর বেগম বলেন, মোর নামে পাঁচ কড়া জাগা আললে। হেই জাগাও চেয়ারম্যান দহল হইর‌্যা লইয়্যা গ্যাছে। মোর জাগা যদি ফেরত না দেয় মুই এইহানে মইর‌্যা যামু।

এবিষয়ে হলদিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম মৃধা বলেন, বর্তমান চেয়ারম্যান ষড়যন্ত্র করে আমার বিরুদ্ধে অনশনে বসিয়েছেন।
অপরদিকে, বর্তমান চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিন্টু মল্লিক বলেন, এখানে ষড়যন্ত্র করার কিছুই নেই। সাবেক চেয়ারম্যান জমি দখল করে কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছেন। তাই ভুক্তভোগীরা জমি উদ্ধারে অনশন করেছেন।

আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম মিজানুর রহমান জানান, অনশনের খবর পেয়েছি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বরগুনা জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান জানান, এ বিষয়ে অভিযোগ পেলে খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।