ঢাকাশনিবার, ২০শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, রাত ২:২৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

খাবার খাইয়ে সেই বৃদ্ধের অনশন ভাঙালেন পুলিশ সুপার

স্টাফ রিপোর্টার
মার্চ ১০, ২০২২ ১০:২৭ অপরাহ্ণ
পঠিত: 162 বার
Link Copied!

বরগুনা-২ আসনের সাংসদ শওকত হাচানুর রহমান রিমনের বিরুদ্ধে জমি জবরদখল করে স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ এনে ওই জমি দখলমুক্ত করার দাবিতে অনশনে বসা সেই বৃদ্ধ অনশন ভেঙেছেন।

বৃহস্পতিবার (১০ মার্চ) রাত ১০টার দিকে বরগুনার পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর মল্লিক পানি পান করিয়ে ও খাবার খাইয়ে তার অনশন ভাঙান।

এর আগে বৃহস্পতিবার সকাল ৮ টায় বরগুনা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে ওই বৃদ্ধ জায়নামাজ বিছিয়ে অনশনে বসেন।

অনশনের বসা বৃদ্ধের নাম বেলায়েত হোসেন। তিনি পাথরঘাটা উপজেলার রায়হানপুর ইউনিয়নের পূর্ব লেমুয়া গ্রামের বাসিন্দা।

বেলায়েত হোসেনের অভিযোগ, কাকচিড়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির সামনে কাকচিড়া-লেমুয়া সড়কের দক্ষিণ পাশে তার পৈত্রিকসূত্রে প্রাপ্ত জমি দখলে নিয়ে স্থাপনা নির্মাণ করছেন বরগুনা-২ আসনের এমপি শওকত হাচানুর রহমান রিমন। কাজ শুরুর পর তিনি এমপি রিমনের সাথে যোগাযোগ করলেও কোনো ফল হয়নি। পরে পাথরঘাটা থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন। কিন্ত কোনো সমাধান হয়নি। নিরুপায় হয়ে আজ তিনি জমিতে স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ ও দখলমুক্ত করার দাবিতে অনশনে বসেনে।

বেলায়েত হোসেন বলেন, দুপুর একটার দিকে এমপি রিমনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গ্রামিণ ফোনের বরগুনা জেলার লোকজন সেখানে এসে হুমকী ধামকি দিয়ে ব্যানার ছিড়ে উঠিয়ে দেন। পরে স্থান পরিবর্তন করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে বটগাছের নিচে বসেন।

জমির দলিলপত্র দেখিয়ে বেলায়েত হোসেন বলেন, পাথরঘাটা উপজেলার লেমুয়া মৌজার জেএল নং-০৪, এসএ খতিয়ান নং- ৫৪০/১১৬১ দাগ নং- ৩১৭০ এর ৩.৫০ শতাংশ জমি নিয়ে বিজ্ঞ আদালতে বন্টন মামলা বিচারাধীন রয়েছে। ওই মামলায় সম্প্রতি জমিতে স্থিতাবস্থা জারি করে আদেশ দিয়েছেন বিজ্ঞ আদালত।

কিন্ত আদালতের আদেশ অমান্য করে গত ২২ ফেব্রুয়ারী বিকেলে স্থানীয় সাংসদ শওকত হাচানুর রহমান রিমন ও তার অনুসারী কাকচিড়ার বাসিন্দা মাহবুবকে দিয়ে ওই জমিতে মাটি কাটার কাজ শুরু করেন। তিনি এতে বাঁধা দেয়ার পর বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংসার কথা হয়।

কিন্ত গত রবিবার (২৭ ফেব্রুয়ারী) দুপুর একটার দিকে তিনি তার জমিতে গিয়ে দেখতে পান, সেখানে স্থাপনা নির্মাণের কাজ করছেন। পরের দিন ২৮ ফেব্রুয়ারী পাথরঘাটা থানায় জমি দখলের বিষয়টি উল্লেখ করে লিখিত অভিযোগ করেন।

এর মধ্যে বেলায়েত হোসেনের ভাই অসুস্থ্য হওয়ায় তাকে চিকিৎসার জন্য বরিশাল নিয়ে যান। ফিরে এসে বুধবার (০৯ মার্চ) দেখতে পান ওই জমিতে স্থাপনা নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন এমপি রিমন। নিরুপায় হয়ে তাই অনশনে বসেছেন।

বেলায়েত বলেন, আমার বয়স ৬৫ বছর। আমি এই জমির বন্টন নিয়ে মামলা চালাতে গিয়ে নিঃস্ব হয়েছি। এখন জমিটুকু ছাড়া কোনো সম্বল নেই। আমি আমার জমি বুঝে পেতে সবার সহযোগীতা চাই।

তিনি আরো বলেন, এসপি স্যার আমাকে ন্যায় বিচারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তাই অনশণ ভেঙ্গেছি। তিনি আমাকে সব কাগজপত্র নিয়ে আসতে বলেছেন৷ আমি কাগজপত্র নিয়ে এসপি স্যারের সঙ্গে দেখা করব।

যোগাযোগ করা হলে বরগুনা-২ আসনের এমপি শওকত হাচানুর রহমান রিমন বলেন, বেলায়েত হোসেনের দাবিকৃত খতিয়ানের ৩১৭০ দাগে আমি কাজ করছিনা। ৩১৭১ দাগে আমার ৫ শতাংশ জমি কেনা আছে। ওই জমিতে আমি কাজ করছি। আমি সব কাগজ জেলা প্রশাসক ও পাথরঘাটা থানায় দিয়েছি।

বরগুনার পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর মল্লিক বলেন, বৃদ্ধ বেলায়েত হোসেন সকালে অনশনে বসেন। আমি জানতে পেরে রাতে এসে তাকে পানি ও খাবার খাওয়াই। তাকে কাগজপত্র নিয়ে আসতে বলেছি। কাগজপত্র দেখে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।