ঢাকামঙ্গলবার, ২৩শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রাত ১:৫২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হাদিসুরকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফনসহ ৯ দাবি নৌপরিষদের

ডেস্ক রিপোর্ট
মার্চ ৫, ২০২২ ৬:১৫ অপরাহ্ণ
পঠিত: 168 বার
Link Copied!

ইউক্রেনে বাংলাদেশি জাহাজে রকেট হামলায় নিহত নাবিক হাদিসুর রহমান আরিফের (৩৩) মরদেহ ফিরিয়ে আনা এবং ওই জাহাজের ২৮ জন অক্ষত নাবিককে দেশে ফিরিয়ে আনাসহ নয়টি দাবি জানিয়েছে বঙ্গবন্ধু নৌপরিষদ।

শনিবার (৫ মার্চ) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটি এই দাবি জানায়।

নৌপরিষদের দাবিগুলো হলো-

১। নিহত হাদিসের মরদেহসহ ২৮ জন অক্ষত নাবিকদের অতিদ্রুত নিরাপদে দেশে ফিরিয়ে তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করতে হবে।

২। হাদিসুর রহমানকে তার গ্রামের বাড়িতে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করতে হবে।

৩। নিহত হাদিসুরই পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি ছিলেন, তাই তার অবর্তমানে পরিবারের হাল ধরার জন্য তার অনার্স সম্পন্ন করা ছোট ভাইকে একটি উপযুক্ত চাকরির ব্যবস্থা করা।

৪। যেহেতু পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি চলে গেছেন তাই তার পরিবারের বর্তমান অর্থনৈতিক সংকট সামাল দেওয়া এবং তার লালিত স্বপ্ন বাবা-মাযের জন্য গৃহস্থল তৈরির কাজ বাস্তবায়নের জন্য আর্থিক সহায়তা নিশ্চিত করা।

৫। রকেট হামলার পর জাহাজটিতে মারাত্মকভাবে আগুন ধরে যাওয়ায় জাহাজটি সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস হওয়ার আশংকা ছিল। কিন্তু সাহসিকতা ও বীরত্বের সাথে এই আগুন নিভানোয় জাহাজটি সম্পূর্ণরূপে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা পায়। যেহেতু জাহাজটি রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এই কারণে নাবিকদের এই সাহসী পদক্ষেপের জন্য রাষ্ট্রীয় সম্মাননা ও পুরস্কার প্রদান করতে হবে।

৬। ১৫ ফেব্রুয়ারি ‘জয়েন্ট ওয়ার কমিউনিটি’ জায়গাটিকে যুদ্ধ কবলিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা দেয়, এর আগের দিন ১৪ ফেব্রুয়ারি জাহাজটি তুরস্কের এরিটি বন্দর থেকে ইউক্রেনের অলভিয়া বন্দরের উদ্দেশে যাওয়ার পথে ইউক্রেনে যুদ্ধ পরিস্থিতি জেনেও নিকটবর্তী কোনো বন্দরে নোঙর করেনি, সে ব্যাপারে তদন্ত করা।

৭। বিধিমালা অনুযায়ী কোনো জাহাজ মালিক কোম্পানি তার জাহাজের নিরাপত্তার জন্য যুদ্ধ কবলিত এবং জলদস্যুপ্রবণ এলাকাতে জাহাজ গমনের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে পারতো। এক্ষেত্রে জাহাজ মালিক কর্তৃপক্ষ বিএসসি-এর পক্ষ থেকে কেন জাহাজটিকে যুদ্ধ কবলিত এলাকায় গমনের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল, সেটি জানা বিশেষভাবে প্রয়োজন।

৮। জাহাজ পরিচালনায় বিএসসির সার্বিক ব্যস্থাপনার অভাবের ফলে আমাদের আজকে এই মৃত্যু ও নাবিকদের দুর্দশা দেখতে হয়েছে এবং রাষ্ট্রীয় মহামূল্যবান সম্পত্তি ‘এমভি বাংলার সমৃদ্ধি’র এই চরম ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে। এই মৃত্যুর দায় কার ওপর বর্তাবে? এই ক্ষয়-ক্ষতির দায় কে নেবে?

৯। যুদ্ধ কবলিত অঞ্চলে এমভি বাংলার সমৃদ্ধি গমন করার সিদ্ধান্ত বিএসসি কেন নিয়েছিল এটা জানা বিশেষভাবে প্রয়োজন বলে মনে করে সংগঠনটি।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।