ঢাকাশনিবার, ২০শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, রাত ২:০৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বেতাগী মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ‘খুশিমত’ অফিস করার অভিযোগ

বেতাগী প্রতিনিধি
ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২২ ৭:০৭ অপরাহ্ণ
পঠিত: 82 বার
Link Copied!

বেতাগীতে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শাহিনুর বেগমের বিরুদ্ধে খেয়ালখুশিমত কর্তব্য পালনের অভিযোগ উঠেছে। প্রায় সময়ই তার দপ্তর থাকে তালাবদ্ধ। ফলে হয়রাণি ও চরম ভোগান্তিতে পড়ায় সেবা গৃহীতাদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।
অভিযোগে জানা গেছে, ঐ মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নিজের খেয়ালখুশি মতো অফিস করেন। এতে সেবা নিতে আসা শত শত অসহায় নারীরা এসে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকে অফিস বন্ধ থাকায় সেবা না নিয়েই বাড়িতে ফিরে যান।
বিশেষ করে তিনি বেতাগী উপজেলার দায়িত্বের পাশাপাশি তালতলী উপজেলায় অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করায় তাঁকে ফোন করলেই শোনা যায় নানা ধরনের অজুহাত। এ কারণে যেই স্থান থেকে ফোন করা হয় শুনেই অন্য উপজেলায় থাকার কথা তিনি ব্যক্ত করেন। আবার কখনো তিনি জেলা কার্যালয় কিংবা অফিশিয়াল কাজে ঢাকায় অবস্থানের কথাও জানান। এ কারণে এখানকার শত শত অসহায় নারীরা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
সেবাবঞ্চিত সড়িষামুড়ি ইউনিয়নের বেবী ণাহার বেগম বলেন, ‘ অনেক দূর থেকে এখানে বার বার এসেও অফিস বন্ধ পাচ্ছি। কখন কর্মকর্তাকে পাবো, কী করব বুঝতে পারছি না।’
শুধূ বেবীই নয়, একই ধরনের অভিযোগ বেতাগী পৌর সভার ৯ নং ওয়ার্ড থেকে সেবা নিতে আসা শিল্পী বেগম সহ আরও একাধিক নারী নীলূফা বেগম, আফরোজা বেগম, সীমা বেগমেরও। তাঁরা অভিযোগ করেন, ‘ চলতি ও আগের সপ্তাহে গত ৫ দিন ধরে এসে অফিস তালাবদ্ধ পাওয়ায় ম্যাডামের কোন সাক্ষাৎ মেলেনি। শুধূ বারান্দায় ঘুরে-ফিরে বাড়িতে চলে যান।
এ অভিযোগ অস্বীকার করে বেতাগী উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শাহিনুর বেগম মুঠোফোনে বলেন, ‘ এতদিন আমি প্রশিক্ষণের জন্য ঢাকায় ছিলাম। তাই অফিস করতে পারিনি। তবে তিনি কবে নাগাদ থেকে এবং কোন বিষয় প্রশিক্ষণের জন্য ছুটিতে ছিলেন এমন প্রশ্নের কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। বরং এড়িয়ে গিয়ে এক পর্যায় অফিসে আসার কথা বলে ফোনটি রেখে দেন।
বরগুনা জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপপরিচালক মেহেরুন নাহার মুন্নি বলেন, ‘ বিষয়টি আমার অজানা। তবে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কাউকে না জানিয়ে কর্মস্থলে অনুপস্থিতি খুবই দ:ুখজণক। তিনি বর্তমানে প্রশিক্ষণ কিংবা ছুটিতে নেই। না অসুস্থ, কোনটাই নয়। তবুও কেন এতদিন অফিস করছেন না, প্রয়োজনীয় তদন্ত সাপেক্ষে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।’
উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. সুহৃদ সালেহীন বলেন, ‘আমার কানেও বেশ কয়েক দিন ধরে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার অফিস বন্ধ থাকার অভিযোগ এসেছে। তবে ওই কর্মকর্তা আমাকে প্রশিক্ষণে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন।’

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।