ঢাকাবৃহস্পতিবার, ২রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, সকাল ৮:০২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বেতাগীতে দারুল ইসলাম মহিলা আলিম মাদরাসায় কর্মচারি নিয়োগ পরীক্ষায় অনিয়মের অভিযোগ

দৈনিক সৈকত সংবাদ
জানুয়ারি ৭, ২০২৩ ৭:১৫ অপরাহ্ণ
পঠিত: 9 বার
Link Copied!

বেতাগী বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন দারুল ইসলাম মহিলা আলিম মাদরাসায় কর্মচারি নিয়োগ পরীক্ষায় অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরীক্ষা চলাকালীন সময় অনিয়মের কথা উল্লেখ করে উপজেলা প্রশাসন বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেন এক পরীক্ষার্থী।পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ না করলেও বিভিন্ন পদে অংশগ্রহণকারী দুই তৃতীয়াংশ প্রার্থীর মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।
জানা গেছে, বেতাগী বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডে অবস্থিত দারুল ইসলাম মহিলা আলিম মাদরাসা অবস্থিত। এই মাদরাসায় সর্বশেষ বেসরকারি জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী গত ১৭ অক্টোবর ২০২২ তারিখে জাতীয় দৈনিক ইনকিলাব এবং স্থানীয় বরগুনা থেকে প্রকাশিত দৈনিক দ্বীপাঞ্চল পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এতে নবসৃষ্ট পদে অফিস সহকারি কাম হিসাব সহকারি একজন, অফিস সহকারি কাম কম্পিউটার অপারেটর পদে একজন, নিরাপত্তাকর্মী একজন এবং শূন্যপদে একজন নৈশ্যপ্রহরীসহ চারটি পদের চাহিদা উল্লেখ করা হয়।
শূন্য ও নবসৃষ্টসহ চারটি পদের বিপরীতে ২৮ জন প্রার্থী আবেদন করে। মাদরাসা কর্তৃপক্ষ নিয়োগবিধি অনুসারে পাঁচ সদস্যের একটি নিয়োগ কমিটি গঠন করা হয়। গতকাল শুক্রবার (৬ জানুয়ারি) বিকেলে ওই মাদরাসার শিক্ষক মিলনায়তনে চারটি পদের বিপরীতে চাকুরি প্রত্যাশী ২৮ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। অভিযোগ কপি থেকে জানা যায়, মাদরাসার অধ্যক্ষ আব্দুস সালামের মেয়ে শেফা ইসলাম অফিস সহকারী কাম সহকারী পদে পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে। অভিযোগকারী সুমা আক্তার বলেন,’ অফিস সহকারী কাম সহকারী পদসহ অন্যান্য পদগুলোতে পরীক্ষা চলাকালীন সময় মাদরাসার কতিপয় শিক্ষক বাহির থেকে প্রশ্নের উত্তর সংগ্রহ করে উত্তর লেখা হয়েছে। কারো কারো প্রশ্নপত্রের ধারণা দেওয়া হয়েছে। এসব কারণে এই পরীক্ষা বাতিল করে পুনরায় স্বচ্ছ পরীক্ষা নেওয়ার জন্য জোড়ালো দাবি জানাই।’
মাদরাসা এলাকার বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা ওয়াজেদ হাওলাদারের জ্যেষ্ঠ ছেলে জসিম উদ্দিন বলেন,’ দারুল ইসলাম মহিলা আলিম মাদরাসায় অধ্যক্ষের আত্মীয় স্বজনসহ বিভিন্নপদে ৮ জন চাকরি করছেন। এটা একটি পারিবারিক মাদরাসায় পরিনত হয়েছে।’
এ বিষয় দারুল ইসলাম মহিলা আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ আব্দুস সালাম বলেন,’ যেহেতু আমার মেয়ে একটি পদে পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে, একারণে নিয়োগ কমিটির সাথে যুক্ত নই। এবিষয় উপাধ্যক্ষ মাওলানা নূরুল ইসলাম দায়িত্বে আছেন,তিনি বলতে পারবেন।’
তথ্য জানতে একাধিকবার ফোন দেওয়া হয় উপাধ্যক্ষ মাওলানা নূরুল ইসলামের সাথে, তিনি ফোন ধরছেন না। এরপর সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শহীদুর রহমান বলেন, আলিম মাদরাসা বিধায় এই নিয়োগে সাথে আমি সংশ্লিষ্ট নই।’
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুহৃদ সালেহীন বলেন,’ অভিযোগ পাওয়া গেছে, সত্যতা প্রমানে বিধিমোতাবেক আইনি প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।’

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।