ঢাকামঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, রাত ৯:১২

আমন বীজ সঙ্কট চরমে

নিজস্ব প্রতিনিধি
অক্টোবর ২, ২০২২ ১০:১৩ পূর্বাহ্ণ
পঠিত: 77 বার
Link Copied!

টানা বর্ষণে জলাবদ্ধতায় নিমজ্জিত হয়ে বীজতলা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় বরগুনায় আমন বীজের চরম সঙ্কট দেখা দিয়েছে। খেত প্রস্তত করেও বীজ সংঙ্কটের কারণে মাঠ খালি রাখতে হয়েছে। এতে করব বরগুনার প্রধান ফসল আমন চাষ নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা।

জেলার পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্যমতে, জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহজুড়ে উপকূলীয় জেলা বরগুনায় ৪৭৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়। এছাড়াও আগস্ট মাসে প্রায় ১০০ মিলিমিটিার বৃষ্টিতে আমনের বীজতলা পানিতে নিমজ্জিত হয়ে বীজ নষ্ট হয়ে যায়।

কৃষকরা জানিয়েছেন, অপেক্ষাকৃত উঁচু জমিতে বীজতলা তৈরী করেছিলেন যেসব কৃষক তাদের বীজ নষ্ট হয়নি। এসব বীজ কিনে আনছেন অনেকে। এক সেড় ধানের আমন বীজ ২০০ টাকা করে বিক্রি করছেন অনেক কৃষক। কিন্ত প্রয়োজনের তুলনায় তা অপ্রতুল। বীজ কিনে কিছু কৃষক জমিতে রোপন করলেও বিপুল পরিমান জমির বীজের চাহিদা মেটানো সম্ভব হচ্ছেনা। ঘাটতি মেটানো সম্ভব না হওয়ায় অনেকের জমি অনাবাদি থেকে যাবে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কার্যালয়ের (খামারবাড়ি) তথ্য অনুযায়ী, বরগুনায় এ বছর মোট ৯৮ লাখ ৮০০ হেক্টর জমিতে আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ২৫ হাজার ৪০০ হেক্টর, আমতলীতে ২৩ হাজার ৩৭১, তালতলীতে ১৬ হাজার ২৩০, বেতাগীতে ১০ হাজার ৬৯২, বামনায় ৬ হাজার ৩৩০ এবং পাথরঘাটায় ১৬ হাজার ৮২৭ হেক্টর জমিতে হাইব্রিড, উচ্চফলনশীল ও স্থানীয় জাতের আমন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

কৃষি বিভাগ জানায়, উপকূলীয় এলাকার কৃষকদের প্রধান ফসল রোপা আমন। কৃষকদের বীজ দিয়ে সহায়তা করে কৃষি বিভাগ। বরগুনার ৫৫ ভাগ জমিতে বি-আর, ব্রি ও বিনা এই তিন জাতের উফশী ধান আবাদ করা হয়। এ ছাড়া বাকি ৪৫ ভাগ জমিতে আবাদ হয় স্থানীয় জাতের রোপা আমন।

বরগুনা সদর উপজেলার খাজুরতলা গ্রামের কৃষক আবুল হোসেন হাওলাদার বলেন, আমি আমনের জন্য দুই একর জমিতে বীজতলা করছি। বৃষ্টিতে হালচাষ করতে পারিনাই। এখন পানি কমছে, চাষবাস কইরা জমিতে বীজ লাগামু। কিন্ত বীজ সব পইচ্চা নষ্ট হইয়া গ্যাছে। এহন কি করমু খ্যাতে? নতুন কইরা বীজ করারও সময় নাই এহন। তাই খ্যাত অনাবাদি থুইয়া দিছি।

জেলা সবচেয়ে বেশি আমন চাষ হয় আমতলী উপজেলায়। উপজেলার হলদিয়া, আঠারগাছিয়া, আমতলী সদর এবং তালতলী উপজেলার ছোটবগী, পচাকোড়ালিয়া ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে, আমনের খেত বীজ রোপনের জন্য প্রস্তত করা হলেও বীজের অভাবে মাঠ খালি পড়ে আছে। চাওড়া ইউনিয়নের কাউনিয়া গ্রামের কৃষক আবদুল জব্বার মৃধা বলেন, আমনের ক্ষেতে এহন বীজ রোয়ার সময়। জমিন রেডি করছি, কিন্তু মোগো বীজ সব শ্যাষ, বৃষ্টির পানি জইম্মা সব বীজ নষ্ট।

পাথরঘাটা উপজেলার কালমেঘার কৃষক সেলিম হাওলাদার বলেন, মোগো প্রায় তিন একর জমি এবার অনবাদি থাকবে। এত কষ্ট করছি এহন মাঠে ধান ফলাইতে পারতেছিনা। এর চাইতে মোগো আর কষ্ট থাহেনা কিছু।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আবু সৈয়দ মো. জোবায়দুল আলম বলেন, আমন বরগুনার কৃষকদের প্রধান ফসল। কিন্ত এবার আমাদের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হবে না।

তিনি বলেন, অতি বৃষ্টিতে বীজতলা নষ্ট হওয়া একটি প্রাকৃতিক দূর্যোগ। আমরা সরকারি ভাবে কৃষকদের আমনের বীজ সরবরাহ করেছিলাম এবং বীজ বপনের সময় উঁচু জমি নির্বাচনের পরামর্শও দিয়েছি। কিন্ত এবার বীজ নষ্ট হওয়ায় সঙ্কট দেখা দিয়েছে। আমরা চেষ্টা করেছি সঙ্কট নিরসনে কৃষকদের বীজ সঙ্কট কাটানোর জন্য। যাদের অতিরিক্ত বীজ আছে তাদের কাছ থেকে বীজ কিনেছেন অনেক কৃষক। তবুও সঙ্কট কাটেনি। এই সমস্যার এখন কোনো সমাধান নেই।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।